in

ফিট ও সুস্থ থাকতে মহিলাদের জন্য ৮ টি টিপস

ফিট এবং সুস্থ থাকার জন্য প্রতিদিন ব্যায়াম করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ২০-৩০ বছরের মহিলারা এই ৮ টি ব্যায়াম করে সবসময় ফিট থাকতে পারেন। সর্বদা ফিট এবং সুস্থ থাকার জন্য ব্যায়াম কি প্রয়োজনীয়? হ্যাঁ, আপনি আপনার জীবনধারায় ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত করে নিজেকে অনেকাংশে ফিট রাখতে পারেন।

কিন্তু আমরা যদি ২০ থেকে ৩০ বছরের মহিলাদের কথা বলি তবে এই বয়সটি এমন, যেখানে মেয়ে এবং মহিলাদের সময়সূচী খুব ব্যস্ত থাকে। এই বয়সে, তারা তাদের চাকরি, পড়াশোনা, ক্যারিয়ার এবং ঘরের কাজ নিয়ে এতটাই ব্যস্ত যে তারা নিজের জন্য সময় বের করতে পারে না।

এইভাবে, মহিলারা তাদের স্বাস্থ্যকে সম্পূর্ণরূপে উপেক্ষা করে এবং একটি সময় পরে অনেক ধরণের স্বাস্থ্য সমস্যা তাদের ঘিরে ফেলে। তবে আপনিও যদি এই বয়সী মেয়ে বা মহিলা হন, তবে ক্যারিয়ার এবং বাড়ির পাশাপাশি নিজের জন্য সময় দেওয়ার চেষ্টা করুন। আপনি প্রতিদিন মাত্র ১৫-২০ মিনিট সময় নিয়ে নিজেকে ফিট এবং সুস্থ রাখতে পারেন।

ফিটনেস বিশেষজ্ঞ এবং প্রশিক্ষক ডক্টর কবিতা নালওয়া বলেছেন যে মহিলারা যদি এই বয়সে তাদের স্বাস্থ্যের যত্ন নেন, তবে তারা দীর্ঘ সময়ের জন্য এর সুবিধা পান। প্রতিদিন ব্যায়াম করলে শরীর ফিট ও সুস্থ থাকে। এর সাথে সাথে আপনার শরীরের গঠনও উন্নত হয়।

শুধু তাই নয়, নিয়মিত ব্যায়াম করলে আপনি উজ্জ্বল ত্বকও পাবেন। আপনি নিজেকে আপনার পুরো দিনের ১৫-২0 মিনিট দিতে শুরু করেন। এতে আপনি সাইক্লিং, সাঁতার, অ্যারোবিক্স, স্কোয়াট এবং ক্রাঞ্চ করতে পারেন। আসুন ডক্টর কবিতা নালওয়া থেকে জেনে নেওয়া যাক ফিট এবং সুস্থ থাকার জন্য ২0 থেকে ৩0 বছর বয়সী মহিলাদের তাদের জীবনধারায় কোন ব্যায়ামগুলি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত (২0 থেকে ৩0 বছরের মহিলাদের জন্য ব্যায়াম)।

সাইকেল চালানো

সাইকেল চালানো

ফিট এবং সুস্থ থাকার জন্য সাইকেল চালানো অন্যতম সেরা ব্যায়াম। সব বয়সের মহিলারা সহজেই এটি করতে পারেন। সাইকেল চালানো শরীরের সমস্ত অংশের চলাচলের অনুমতি দেয়, যা সামগ্রিক স্বাস্থ্যের জন্য সুবিধা প্রদান করে।

এটি বাহু, পা এবং উরুর পেশীকে শক্তিশালী করে। এর পাশাপাশি সাইকেল চালানোও বডি টোন দেয়। নিয়মিত সাইকেল চালানোর মাধ্যমে পেটের চর্বি, থাই ফ্যাটও কমানো যায়। আপনি যদি প্রতিদিন ২0-২৫ মিনিট সাইকেল চালান, তবে আপনি ব্যথার অভিযোগ করবেন না।

সিট-আপ

আপনি যদি সাইকেল চালাতে না জানেন তবে আপনি আপনার জীবনযাত্রায় ক্রাঞ্চ বা সিট-আপ ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। ক্রাঞ্চ পেটের পেশী শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। এছাড়াও এটি আপনার স্ট্যামিনা বাড়ায়। এই ব্যায়ামটি করার জন্য প্রথমে আপনার পিঠের উপর মাদুরের উপর শুয়ে পড়ুন।

আরও দেখুন>>> 

আপনার ডান হাঁটু বাঁকুন এবং আপনার তল মাটিতে ছেড়ে দিন। এবার ডান হাত ভাঁজ করে হাতের তালু মাথার নিচে রাখুন। এর পরে, আপনার মাথা, কাঁধ এবং ধড় তুলুন। কয়েক সেকেন্ড এই অবস্থানে থাকার পর স্বাভাবিক অবস্থায় চলে আসুন। আপনি ৫-১0 মিনিটের জন্য এই ব্যায়াম করতে পারেন।

এড়িয়ে যাওয়া

অনেক মেয়ে লাফালাফি পছন্দ করে। এমন পরিস্থিতিতে নিয়মিত স্কিপিং করেও তারা নিজেদের ফিট ও সুস্থ রাখতে পারে। আপনি স্কিপিং থেকে অনেক স্বাস্থ্য সুবিধা পান। বাদ দিয়ে, আপনি আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন। এর পাশাপাশি নিয়মিত স্কিপিং করাও উচ্চতা বাড়ানোর একটি ভালো উপায়।

স্কিপিং মেয়েদের শরীরের বিকাশেও সহায়ক। স্কিপিং শরীরের নিচের অংশের শক্ত ও শক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। প্রতিদিন এটি করলে হাড় ও পেশী মজবুত হয়। এর সাথে, আপনি জগিং এবং দৌড়ানোর মাধ্যমে আপনার ফিটনেস বজায় রাখতে পারেন। লাফানো বা দড়ি লাফানোর ফলে ওজন কমে।

স্কোয়াটস

ফিট থাকার জন্য স্কোয়াট হল অন্যতম সেরা ব্যায়াম। স্কোয়াটগুলি অতিরিক্ত চর্বি অপসারণ করতে পরিচিত। এটি আপনার হাঁটু এবং উরুর চর্বি কমাতে সাহায্য করে। স্কোয়াটগুলিকে চেয়ার পোজও বলা হয়। এটি করার জন্য, প্রথমে সোজা হয়ে দাঁড়ান।

এর পরে, আপনার হাত সামনের দিকে সোজা করুন। এবার হাঁটু থেকে পা বাঁকিয়ে নিন। কিছুক্ষণ এই অবস্থায় থাকার পর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসুন। প্রতিদিন এটি করলে শরীরের পেশী তৈরি হয় এবং অতিরিক্ত চর্বি বেরিয়ে আসে। ৫-৭ মিনিটের জন্য স্কোয়াট করে, আপনি সবসময় ফিট থাকতে পারেন।

সাঁতার কাটা

অনেক মহিলা ব্যায়াম করতে পছন্দ করেন না, তাই তারা ব্যায়াম হিসাবে সাঁতার কাটতে পারেন। সাঁতার কেটেও আপনি সবসময় নিজেকে ফিট এবং সুস্থ রাখতে পারেন। সাঁতার একটি ব্যায়াম যা পুরো শরীরের নড়াচড়ার সাথে জড়িত। সাঁতার আপনাকে শক্তি দেয়, পেশী শক্তিশালী হয়।

প্রতিদিন এটি করলে হাত, পা ও নিতম্বের পেশী মজবুত হয়। এছাড়াও, সাঁতারও হৃদস্পন্দন বৃদ্ধি করে। সাঁতার আপনার মানসিক চাপ এবং উত্তেজনাও কমিয়ে দেয়। আপনি যদি সব বয়সেই নিজেকে ফিট রাখতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনার লাইফস্টাইলে সাঁতারকে অন্তর্ভুক্ত করুন।

পার্শ্ব তক্তা

অনেক মহিলাই পেটের ডান দিকে চর্বি বের হয়ে যাওয়ায় সমস্যায় পড়েন, এর জন্য তারা বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। কিন্তু চর্বি পোড়া হয় না। আপনার যদি এই সমস্যা থাকে তবে আপনি আপনার জীবনযাত্রায় সাইড প্ল্যাঙ্ক ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। এই ব্যায়ামটি ১৫ বারে ৫-৫ সেটে করা যেতে পারে। শুরুতে, এটি একটি বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে করা প্রয়োজন।

অ্যারোবিকস

নারীদের ফিট এবং সুস্থ রাখার জন্য অ্যারোবিক্স হল অন্যতম সেরা ব্যায়াম। অ্যারোবিক্স করলে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে, যদি আপনার ওজন বেড়ে থাকে, তাহলে এর অভ্যাস ওজন কমাতেও সাহায্য করে।

অ্যারোবিক্স মহিলাদের স্ট্যামিনা বাড়ায়। প্রতিদিন ২0-৩0 মিনিট অ্যারোবিক্স করে আপনি ডায়াবেটিস, হৃদরোগ এবং রক্তচাপ থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারেন। প্রতিদিন অ্যারোবিক্স করার অনেক উপকারিতা রয়েছে।

রিভার্স ক্রাঞ্চ

রিভার্স ক্রাঞ্চ

বিপরীত ক্রাঞ্চ ব্যায়ামও মহিলাদের জন্য একটি দুর্দান্ত ব্যায়াম। এর প্রতিদিনের অনুশীলনের মাধ্যমে মহিলারা নিজেদেরকে ফিট ও সুস্থ রাখতে পারেন। রিভার্স ক্রাঞ্চ ব্যায়াম করা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এই ব্যায়াম করলে পায়ের পেশী শক্তিশালী হয়। আপনি চাইলে শক্তি প্রশিক্ষণ ব্যায়ামও করতে পারেন।

সর্বোপরি, আপনি যদি প্রতিটি বয়সে নিজেকে ফিট এবং সুস্থ দেখতে চান, তবে ২0-৩0 বছর বয়স থেকে আপনার জীবনযাত্রায় উপরে উল্লিখিত অনুশীলনগুলি অন্তর্ভুক্ত করুন। এমনকি ব্যায়ামের জন্য আপনাকে বেশি সময় ব্যয় করতে হবে না। প্রতিদিন মাত্র ৩0 মিনিট ব্যায়াম করেও আপনি নিজেকে ফিট রাখতে পারেন।

বন্ধুরা, আমাদের আজকের পোস্টটি আপনাদের কেমন লাগলো? আশা করি ভালো লেগেছে। আমাদের পোস্টটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। কোথাও যদি বুঝতে কোন সমস্যা হয় তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাবেন।

পরবর্তিতে কোন বিষয়ে পোস্ট দেখতে চান তা আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান। আপনাদের কমেন্ট আমাদেরকে নিত্যনতুন পোস্ট লিখতে উৎসাহিত করে। আরও নতুন নতুন সাস্থ বিষয়ক টিপস পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

স্বাস্থ্য এবং সুস্থতার উপর প্রবন্ধ পড়ুন এবং শিখুন

সুস্থ থাকার জন্য এই প্রয়োজনীয় ভিটামিন গুলিকে খাবারে অন্তর্ভুক্ত করুন।

সুস্থ থাকার জন্য এই প্রয়োজনীয় ভিটামিন গুলিকে খাবারে অন্তর্ভুক্ত করুন।