in

কীভাবে খুশকি থেকে মুক্তি পাবেন,খুশকির প্রাকৃতিক প্রতিকার-

মাথায় খুশকি বা খুশকির সমস্যার কারণে চুলকানির সমস্যা হতে পারে। স্বাস্থ্যকর চুলের জন্য খুশকি ভালো অবস্থা নয়। খুশকির কারণে চুল পড়তে পারে। যেকোনো ঋতুতেই খুশকির সমস্যা হতে পারে। খুশকির সমস্যা এড়াতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার প্রতি খেয়াল রাখতে হবে। বারবার চুলকানি হলে ত্বক লাল হয়ে যেতে পারে এবং ফুসকুড়ি হতে পারে। এই প্রবন্ধে, আমরা খুশকির সমস্যা দূর করার কারণ ও প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব।

খুশকি কি?

খুশকি দেখতে সাদা পাউডারের মতো, এটি আপনার চুল বা কাঁধের উপরের স্তরে পড়তে দেখা যায়। শীত ও গ্রীষ্ম উভয় ঋতুতেই খুশকির সমস্যা দেখা দেয়। যারা মাথা পরিষ্কার রাখেন না তাদের মধ্যে খুশকির সমস্যা বেশি হয়। শীতের সময় সাধারণত খুশকি বেশি দেখা দেয়।

খুশকির কারণ

নিম্নলিখিত ক্রিয়া বা শর্তগুলি মাথার ত্বক এবং চুলে খুশকি তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে। আসুন জেনে নিই খুশকির প্রধান কারণগুলো সম্পর্কে। যেমন-

১. শীতকালে গরম পানি দিয়ে চুল ধোয়া
শীতের মৌসুমে মানুষ গরম পানি দিয়ে চুল ধোয়, কিন্তু তা মাথার ত্বক ও চুলের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। গরম পানি চুলকে শুষ্ক করে এবং মাথার ত্বকেও একই কাজ করে। যার কারণে ধীরে ধীরে খুশকি হতে শুরু করে।

২. চুলে তেল মালিশ না করা
মাথার ত্বক শুষ্ক রাখা, খুশকি তৈরির কারণ। তবে এই পরিস্থিতি এড়াতে চুলে তেল মালিশ করা উচিত। এটি করতে ব্যর্থ হলে মাথার ত্বক শুষ্ক এবং চুলকায়। চুলে তেল মালিশ করলে খুশকির কারণ হওয়া শুষ্কতা কমে যায়।

৩. অ্যান্টি-ড্যান্ড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার না করা
আপনার খুশকি থাকুক বা না থাকুক, তবুও নিয়মিত শ্যাম্পুর সাথে মাঝে মাঝে একটি খুশকি বিরোধী শ্যাম্পু ব্যবহার করা উচিত। কারণ, খুশকি শুধু শুষ্ক ত্বকের কারণেই হয় না, এটি ফাঙ্গাসের মতো সংক্রমণের কারণেও হতে পারে। কখনও কখনও একটি অ্যান্টি-ড্যান্ড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করা এই সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

৪. সঠিক কন্ডিশনার ব্যবহার না করা
কন্ডিশনার চুলে আর্দ্রতা জোগায়। তবে এটি কেনার সময় অবশ্যই এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানা উচিত। খুশকি এড়াতে আপনার এমন একটি কন্ডিশনার ব্যবহার করা উচিত যাতে অ্যান্টি-ফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

ভিটামিনের অভাব

আমাদের শরীরে অনেক জৈবিক উপাদান পাওয়া যায় যা আমাদের শরীরের বৃদ্ধির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যারা ভালো খায় না বা যারা তাদের খাবারে প্রাণের উপাদান খুব কম গ্রহণ করে। যারা বাইরের জাঙ্ক ফুড যেমন পিৎজা, বার্গার, ময়দা পণ্য এবং সবুজ শাকসবজি যেমন অতিরিক্ত পরিমাণে গ্রহণ করেন তারোই। পারওয়াল প্রভৃতি খুব কম পরিমাণে গ্রহণ করা হয়, যার কারণে গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের অভাব হয়। খুশকি প্রধানত (ভিটামিন ‘বি’ কমপ্লেক্স) গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের অভাবে ঘটে।

মাথা পরিষ্কার করে খুশকির চিকিৎসা করুন
জমে থাকা মৃত কোষ এবং স্তরগুলি অপসারণ করতে আপনার চুল এবং মাথার ত্বক পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পরিষ্কার করুন। চুল ধোয়ার জন্য, আপনি কেটকোনাজল, সেলেনিয়াম সালফাইড বা জিঙ্কযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। মাথার উপরিভাগের স্তরগুলি অপসারণ করতে, আপনাকে একটি সূক্ষ্ম চিরুনি দিয়ে আপনার চুল ব্রাশ করতে হবে। এটি করলে রক্ত ​​​​সঞ্চালনও উন্নত হবে।

ম্যাসাজ দিয়ে খুশকির চিকিৎসা
উষ্ণ নারকেল বা অলিভ অয়েল দিয়ে মাথার ত্বকে মালিশ করলে রক্ত ​​চলাচলের উন্নতি ঘটে।রক্ত সঞ্চালন উন্নত হলে খুশকি নিয়ন্ত্রণে থাকে।

জলবায়ু পরিবর্তন এড়ান

আবহাওয়া থেকে আপনার চুল এবং মাথার ত্বককে রক্ষা করুন। সূর্যের রশ্মি এবং তাপ আপনার মাথার ত্বকে তেলের উৎপাদন বাড়াতে পারে, যা খুশকির সমস্যা বাড়ায়। তাই সূর্যের রশ্মি এবং খারাপ আবহাওয়ার সরাসরি এক্সপোজার এড়াতে মাথা ঢেকে রাখুন।

জীবনধারা পরিবর্তন
মানসিক চাপ কমানো, সুষম খাদ্য খাওয়া এবং শরীর পরিষ্কার রাখা আপনাকে খুশকি প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।  এমনকি ব্যায়াম করলেও আপনাকে মানসিক চাপ থেকে মুক্তি দিতে পারে, যা খুশকি প্রতিরোধ করতে পারে, তাই নিয়মিত যোগব্যায়াম করুন।

সূর্যরশ্মি
ভেজা চুল সূর্যের রশ্মিতে শুকাতে হবে কারণ সূর্যের রশ্মিতে ভিটামিন উপাদান পাওয়া যায় যা খুশকি কমাতে সাহায্য করে।

সাঁতার কাটার সময় ক্যাপ ব্যবহার
সুইমিং পুলে সাঁতার কাটার সময় মাথায় টুপি পরা উচিত কারণ সুইমিং পুলের পানিতে ক্লোরিন পাওয়া যায় যা চুলের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

তেল ব্যবহার করবেন না
টারপেনটাইনযুক্ত তেল খুশকিতে ব্যবহার করা উচিত নয় কারণ এটি চুলের শুষ্কতা বাড়ায়।

ডায়েট পরিবর্তন করে ঘরেই খুশকির চিকিৎসা করুন

  • তৈলাক্ত, মরিচ-মসলাযুক্ত খাবার বেশি খাওয়া উচিত নয় কারণ এটি বাত দোষ বাড়ায় এবং মাথার ত্বককে শুষ্ক করে তোলে।
  • কফি, চা খুব অল্প পরিমাণে খাওয়া উচিত।
  • সবুজ শাকসবজি যেমন লাউ, তারোই, পারওয়াল, টিন্ডে ইত্যাদি খাওয়া উচিত কারণ এতে ভিটামিন বি কমপ্লেক্সের উপাদান রয়েছে যা খুশকি কমাতে সাহায্য করে।
  • রসুনের এক বা দুটি লবঙ্গ প্রতিদিন খালি পেটে খাওয়া উচিত কারণ রসুনে অ্যান্টি-ফাঙ্গাল উপাদান পাওয়া যায় যা খুশকি কমাতে সাহায্য করে।
  • চিনাবাদাম খাওয়া উচিত কারণ এতে জিঙ্ক এবং ভিটামিন বি কমপ্লেক্স পাওয়া যায়।
  • তিলের তেল চুলে ম্যাসাজ আকারে এবং সবজি রান্নার আকারে ব্যবহার করা উচিত, কারণ তিলের তেলে ওমেগা বেশি পরিমাণে পাওয়া যায়।

এই শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না
রাসায়নিক থেকে তৈরি সোডিয়াম লরিল সালফেট (S.L.S) শ্যাম্পু শুষ্ক মাথার ত্বক হতে পারে। যার কারণে মাথা চুলকাতে শুরু করে। Cocamidoropy Betaine (Cocamidoropy Betaine) এই রাসায়নিক থেকে তৈরি শ্যাম্পু অতিরিক্ত ব্যবহার করলে চোখ ও মাথার ত্বকে চুলকানি শুরু হয়।

ট্রাইডোসান থেকে তৈরি শ্যাম্পু অতিরিক্ত ব্যবহারে শরীরে উপস্থিত হরমোন ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। যার কারণে মাথার ত্বক শুষ্ক ও প্রাণহীন হয়ে পড়ে।
পলিসরবেট: এই রাসায়নিক থেকে তৈরি শ্যাম্পুর অতিরিক্ত ব্যবহারে ত্বকের পিএইচ লেভেল ভারসাম্যহীন হতে পারে, যার কারণে মাথার ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় এবং চুল শুষ্ক ও প্রাণহীন হয়ে পড়ে।

খুশকির ঘরোয়া প্রতিকার

খুশকির চুলকানি এবং বিব্রত এড়াতে ঘরোয়া প্রতিকার সবচেয়ে কার্যকর। কারণ সঠিকভাবে করা হলে ঘরোয়া প্রতিকারের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া খুবই কম হয়। আসুন জেনে নেই এমন ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে।

খুশকি দূর করতে দইয়ের মিশ্রণ 
শ্যাম্পু করার পর চুলের গোড়ায় দই লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিন। এর পর আবার চুল ধুয়ে ফেলুন।

খুশকি দূর করতে নিমের তেল উপকারী
খুশকিতে নিমের তেল প্রয়োগ করা খুবই উপকারী বলে প্রমাণিত হয়েছে কারণ নিমের তেলের প্রকৃতিতে ভিটামিন ‘ই’ পাওয়া যায়, যা চুলের শুষ্কতা কমায় এবং খুশকিকে গোড়া থেকে দূর করে। কারণ নিম অ্যান্টি ফাঙ্গাল হিসেবেও কাজ করে। আসুন জেনে নিই খুশকি থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়ার উপায়।

নিমের তেলের সাথে ১টি কর্পূর মিশিয়ে লাগালে দুই সপ্তাহের মধ্যে খুশকি দূর হয়। কারণ কর্পূরের একটি শীতল প্রভাব রয়েছে যা মাথার চুলকানি কমাতে সাহায্য করে। নিমের শুকনো পাতা ভালো করে পিষে তাতে অলিভ অয়েল মিশিয়ে চুলের গোড়ায় লাগান। ১ ঘণ্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এই রেসিপিটি মাথার খুশকি ও চুলকানি দূর করে।

চা গাছের তেল খুশকি দূর করতে সাহায্য করে

চা গাছের তেলের কয়েক ফোঁটা (চা পাতা থেকে তৈরি তেল) নারকেল তেলের সাথে মেশানো উচিত (খুশকির ঘরোয়া প্রতিকার) কারণ টিট্রি অয়েলে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুণ রয়েছে কারণ খুশকিও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের কারণে হয়, তাই টিট্রি অয়েলের ব্যবহার করুন।

তিলের তেল খুশকি থেকে মুক্তি দেয়
তিলের তেল একটি প্রাকৃতিক তেল, খুশকিতে তিলের তেল ব্যবহার করা উচিত কারণ এতে ৭৪ শতাংশ ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে যা চুলকে নরম করতে এবং শুষ্কতা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়াও এতে ভিটামিন ই ও ভিটামিন সি পাওয়া যায়। তিলের তেল সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে চুলকে রক্ষা করে।

নারকেল তেল খুশকি দূর করতে উপকারী
২০০ মিলি নারকেল তেলে ৫ গ্রাম কর্পূরের গুঁড়া মিশিয়ে লাগালে তিন সপ্তাহের মধ্যে খুশকি দূর হয়।

হালকা গরম তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে খুশকি কমে যায়।
চুলে তেল দেওয়ার আগে, তেলটি হালকা গরম করা উচিত কারণ হালকা গরম তেল চুলের গোড়ায় ভালভাবে পৌঁছায় এবং চুলে উপস্থিত খুশকিও কমায় (খুশকির ঘরোয়া প্রতিকার)।

শুকনো কমলার খোসা খুশকি দূর করতে উপকারী

শুকনো কমলার খোসার গুঁড়া ৫ থেকে ৬চা চামচ লেবুর রসে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন এবং চুলের গোড়ায় লাগান এবং তারপর শুকানোর পর চুল ধুয়ে ফেলুন।

কখন ডাক্তারের কাছে যেতে হবে
যদিও খুশকি একটি সাধারণ রোগ, কিন্তু খুশকি যদি বারবার হতে শুরু করে বা দীর্ঘ সময় ধরে থাকে, তাহলে দেরি না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

উপসংহারঃ- 
আশাকরি কীভাবে খুশকি থেকে মুক্তি পাবেন এবং কিভাবে খুশকির প্রাকৃতিক প্রতিকার করবেন তা আপনারা বুঝতে পেরেছেন। খুশকি সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আমাদের পোস্টটি যদি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন জাতেকরে তারাও খুশকির প্রতিকার সম্পর্কে জানতে পারে।

জাঙ্ক ফুড আপনার স্বাস্থ্যের জন্য কতটা ভালো?

কাঁচা বাদামে উপকারিতা এবং কাঁচা বাদামে কী কী পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়