in

আলু’র ১৭ টি সুবিধা, ব্যবহার এবং অসুবিধা

আলুই বিশ্বের একমাত্র খাদ্য উপাদান, যা নিরামিষ এবং আমিষ সব ধরনের খাবারেই ব্যবহৃত হয়। এটি সবচেয়ে সাধারণ সবজি, যার কারণে লোকেরা এর বৈশিষ্ট্যগুলিকে উপেক্ষা করে এবং আলু খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে অজ্ঞ থাকে। সেজন্য স্টাইলক্রেসের এই প্রবন্ধে আমরা আলু খাওয়ার সুবিধা-অসুবিধা দুটোরই তথ্য নিয়ে এসেছি। তাহলে দেরি না করে জেনে নেওয়া যাক আলুর গুণাগুণ সম্পর্কে

সুচিপত্র

  • আলুর প্রকারভেদ
  • আলুর উপকারিতা
  • আলুর পুষ্টি উপাদান
  • আলুর ব্যবহার
  • কিভাবে আলু চয়ন এবং একটি দীর্ঘ সময়ের জন্য তাদের সংরক্ষণ?
  • আলুর অসুবিধা – পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
  • আলুর প্রকারভেদ

 আলু কত প্রকার

রঙ এবং আকারের ভিত্তিতে, বাজারে অনেক ধরণের আলু দেখা যাবে, যা আমরা নীচে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা করছি:

১. রাসেট আলু: রাসেট আলু আকারে ছোট, মাঝারি এবং বড় এবং একটি বাদামী (ত্বকের মতো) রঙের হয়। এটি খেতে সুস্বাদু এবং সাধারণত সবজি তৈরিতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। এটি আলু সবচেয়ে সাধারণ ধরনের।

২. লাল আলু: এটি অন্য ধরনের আলু, যার রঙ লাল। এটি খেতে খুব সুস্বাদু, এটি স্যুপ এবং সালাদ তৈরিতে ব্যবহার করা যেতে পারে। এ ছাড়া এগুলো ভুনা করেও খাওয়া যায়।

৩. সাদা আলু: এই আলু দেখতে সাদা এবং দেখতে সুন্দর। খেতেও অসাধারন। এটি সিদ্ধ বা ভাজা খাওয়া যেতে পারে।

৪. হলুদ আলু: নাম অনুসারে এই আলুর রং হলদে। বিশেষ করে আমিষ খাবারে এর ব্যবহার বেশি। এটি বিশেষত ভাজা বা ভাজা খাবারের জন্য সত্য।

৫. বেগুনি আলু: এটি একটি বিশেষ ধরনের আলু, যার রঙ বেগুনি। এই ধরনের আলু গ্রিলিং, বেকিং এবং রোস্ট করার জন্য উপযুক্ত।

 আলুর উপকারিতা সম্পর্কে

আলুর উপকারিতাঃ- আলুকে সুস্বাদু ও পুষ্টিকর খাবার হিসেবে গণ্য করা হয়। এটি শুধু পেট ভরাতেই কাজ করে না, এতে উপস্থিত ঔষধিগুণ শারীরিক সমস্যা দূর করতেও সহায়ক বলে প্রমাণিত হয়। এ নিয়ে গবেষণায় জানা যায় যে আলু রক্ত ​​সঞ্চালনের উন্নতির পাশাপাশি শরীরে তরল ধরে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এ ছাড়া আলু ত্বক, চুল ও চোখের জন্যও উপকারী প্রমাণিত হতে পারে

আলু খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য নানাভাবে উপকারী বলে বিবেচিত হতে পারে। তবে মনে রাখবেন যে আলু কোনওভাবেই কোনও গুরুতর অসুস্থতার নিরাময় নয়। এর সেবন শুধুমাত্র সেই রোগের লক্ষণগুলিকে কিছুটা হলেও কমাতে সাহায্য করতে পারে। এবার পড়ুন আলুর আরও উপকারিতা:

১. হার্টের জন্য
হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য আলু উপকারী হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি হার্টকে খারাপভাবে প্রভাবিত করতে পারে। একই সময়ে, আলু কোলেস্টেরল মুক্ত। শুধু তাই নয়, ভিটামিন-বি এবং সি ছাড়াও আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যারোটিনয়েড যেমন লুটেইন এবং জেক্সানথিন, যা হার্টকে সুস্থ রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

আরও দেখুন>>>

২. রক্তচাপের জন্য 
রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও আলুর রসের উপকারিতা দেখা যায়। আসুন আপনাকে বলি যে আলুতে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম রয়েছে, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে পারে। এছাড়া এ সংক্রান্ত গবেষণায় আরও বলা হয়েছে যে আলু খাওয়া মানসিক চাপের কারণে উচ্চ রক্তচাপ কমাতেও সহায়ক হতে পারে। এছাড়াও, আলুতেও প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। একই সময়ে, রক্তচাপ রোগীদের উচ্চ রক্তচাপের প্রভাব কমাতে ফাইবারকেও কার্যকরী হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে।

৩. হাড়ের স্বাস্থ্য

ক্যালসিয়ামও পাওয়া যায় আলুতে, হাড়ের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি। ক্যালসিয়াম হাড়ের বিকাশ এবং শক্তিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ক্যালসিয়ামের অভাব অস্টিওপোরোসিস হতে পারে, যেখানে হাড় দুর্বল এবং ভঙ্গুর হয়ে যায়। এই কারণে, হাড়ের বৃদ্ধিও বন্ধ হয়ে যেতে পারে এবং ফ্র্যাকচারের ঝুঁকি বাড়তে পারে।

একই সময়ে, শারীরিকভাবে দুর্বল হওয়া এবং অত্যধিক ওজন হ্রাস করাও অস্টিওপোরোসিসের মতো হাড়ের রোগের পিছনে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হতে পারে। এছাড়াও, আলুতে উপস্থিত ম্যাগনেসিয়ামের পরিমাণ হাড়ের গঠনগত বিকাশে সাহায্য করতে পারে।

৪. ক্যান্সার
আমরা উপরে উল্লেখ করেছি যে আলু কোলেস্টেরল মুক্ত এবং একটি রিপোর্ট অনুযায়ী কোলেস্টেরল শরীরে অনেক ধরণের ক্যান্সার সৃষ্টি করতে পারে। তবে এর জন্য আরও প্রমাণের প্রয়োজন রয়েছে। এ ছাড়া আলুকে ভিটামিন-সি এর গুরুত্বপূর্ণ উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। একই সময়ে, একটি বৈজ্ঞানিক রিপোর্ট অনুযায়ী, ভিটামিন-সি ক্যান্সার থেরাপির জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।

শুধু তাই নয়, কিছু আলুতে রয়েছে ফ্ল্যাভোনয়েড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন-এ (যেমন জেক্সানথিন এবং ক্যারোটিন) যা অনেক ধরনের ক্যান্সার থেকে রক্ষা করতে পারে। এছাড়াও, আলুতে quercetin নামক একটি যৌগ থাকে, যা অ্যান্টি-ক্যান্সার এবং অ্যান্টি-টিউমার বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করতে পারে। এমতাবস্থায় বলা যায় ক্যান্সারের জন্য আলুর ব্যবহার কিছুটা হলেও উপকারী হতে পারে।

৫. হজম
পাচনতন্ত্রকে সুস্থ রাখতেও আলুর গুণাগুণ দেখা যায়। আমরা আগেই বলেছি, আলুতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে, যা পেট সংক্রান্ত সমস্যায় কার্যকরী কাজ করতে পারে। এটি হজমকে উন্নীত করতে পারে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে কাজ করে। এর সাথে এতে উপস্থিত কার্বোহাইড্রেটও খাদ্য হজম করতে সহায়ক বলে বিবেচিত হয়।

এছাড়াও আলুতে ভিটামিন-বি গ্রুপের নিয়াসিন (ভিটামিন বি-৩) উপাদান রয়েছে। নিয়াসিন পাচনতন্ত্র নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করতে পারে। আলু শুধুমাত্র স্টার্চ কার্বোহাইড্রেটই নয়, এটি সহজে হজম হয় এবং তাৎক্ষণিক শক্তি প্রদান করতে পারে।

৬. কিডনিতে পাথর

কিডনির পাথর দূর করতেও আলুর উপকারিতা দেখা যায়। আলু পটাশিয়ামের একটি ভালো উৎস এবং একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, পটাসিয়াম এর সাহায্যে পাথর নিরাময় করা যায়। এছাড়াও আলুতে উপস্থিত ফাইবার কিডনির পাথর দূর করতেও সাহায্য করে। বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে, ফাইবার গ্রহণ পোস্ট-মেনোপজাল মহিলাদের কিডনি পাথরের বিরুদ্ধে একটি প্রতিরক্ষামূলক ভূমিকা পালন করতে পারে।

৭. স্কার্ভি
স্কার্ভি হল মাড়ি সংক্রান্ত একটি সমস্যা, যা শরীরে ভিটামিন-সি-এর অভাবের কারণে হয়ে থাকে। ভিটামিন একটি অপরিহার্য পুষ্টি যা শরীরে কোলাজেন (ত্বক, রক্তের ধমনী এবং তরুণাস্থিতে পাওয়া প্রোটিন) গঠনের জন্য প্রয়োজন। আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি, যা শরীরে ভিটামিন-সি-এর অভাব পূরণ করে স্কার্ভির মতো রোগ থেকে রক্ষা করতে সহায়ক হতে পারে।

৮. ডায়রিয়া
ডায়রিয়ার ক্ষেত্রেও আলু উপকারী। প্রকৃতপক্ষে, আলুতে জিঙ্ক  এর মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি রয়েছে। একই সময়ে, একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা নিশ্চিত করে যে দস্তা মৌখিক সম্পূরক তীব্র ডায়রিয়া প্রতিরোধ করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। এছাড়াও, আলুতে ট্যানিন, ফ্ল্যাভোনয়েড এবং অ্যালকালয়েড সহ অনেক যৌগ থাকে যা ডায়রিয়া উপশম করতে সাহায্য করতে পারে।

শুধু তাই নয়, আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম এবং পটাসিয়াম, যা কার্যকরী ইলেক্ট্রোলাইট। এগুলি ডায়রিয়ার সময় শরীরে তরল নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে পারে।

৯. প্রদাহ কমায়
আলুর উপকারিতা এখানেই শেষ নয়। প্রদাহের ক্ষেত্রে শরীরকে বিশ্রাম দিতেও আলু ব্যবহার করা যেতে পারে। এখানে আলুর খোসার ভূমিকা দেখা যায়। একটি প্রতিবেদন অনুসারে, আলু এবং আলুর খোসা উভয়ই প্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ, যা প্রদাহ কমাতে কাজ করতে পারে ।

১০. মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য

আলুতে আলফা লাইপোইক অ্যাসিড নামে একটি অ্যাসিড থাকে, যা মস্তিষ্কের বিকাশে অবদান রাখতে পারে। বৈজ্ঞানিক রিপোর্ট অনুসারে, লাইপোইক আলঝেইমারস আক্রান্ত রোগীর স্মৃতিশক্তি বাড়াতে কাজ করতে পারে। এছাড়া আলুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি। একটি প্রতিবেদন অনুসারে, ভিটামিন-সি নিউরোট্রান্সমিটার  নামক একটি বিশেষ মস্তিষ্কের রাসায়নিক তৈরি করতে কাজ করে। নিউরোট্রান্সমিটার মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করতে কাজ করতে পারে, যেমন মেজাজ এবং ঘুম নিয়ন্ত্রণ করা ইত্যাদি।

১১. অনাক্রম্যতা
শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও আলু খাওয়ার উপকারিতা দেখা যায়। আমরা আগেই বলেছি যে আলু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। একই সময়ে, ভিটামিন-সি একটি কার্যকর ইমিউনিটি বুস্টার হিসেবে পরিচিত। এটি একটি কার্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ইমিউন সিস্টেম পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। উপরন্তু, আলু ফাইবার সমৃদ্ধ। একটি প্রতিবেদন অনুসারে, ফাইবার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

১২. ওজন নিয়ন্ত্রণ করে
ওজন কমাতেও আলু উপকারী হতে পারে। একটি গবেষণা পরামর্শ দেয় যে আলুতে স্থূলতা-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা স্থূলতার সমস্যা কমাতে সাহায্য করতে পারে। উপরন্তু, আলু ফাইবার সমৃদ্ধ। ফাইবার ওজন নিয়ন্ত্রণে কাজ করতে পারে।

শুধু তাই নয়, ভিটামিন-সি ওজন নিয়ন্ত্রণেও কার্যকরী হতে পারে। একটি সমীক্ষা অনুসারে, ভিটামিন সি এবং শরীরের ভরের মধ্যে একটি বিপরীত সম্পর্ক রয়েছে, অর্থাৎ এটি ক্রমবর্ধমান ওজন কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করতে পারে। একই সময়ে, আলু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। এটি আমরা ইতিমধ্যে নিবন্ধে বলেছি।

একই সঙ্গে কন্দ বা কন্দের ক্যাটাগরিতে আলুআসে। আলুর বিশেষত্ব হল এটিকে সবচেয়ে বেশি ভর্তি খাবারের ক্যাটাগরিতে রাখা হয়। এটি দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা রাখতে পারে এবং ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। এছাড়া ওজন নিয়ন্ত্রণে আলুর ভূমিকাও নির্ভর করে আলু তৈরির পদ্ধতির ওপর। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য স্টিমিং, বেকড বা সিদ্ধ আলুএকটি ভালো বিকল্প হতে পারে। একই সঙ্গে আলুর চিপস, বার্গার, সমোসা বা ফ্রেঞ্চ ফ্রাই সেবন করলে ওজন বাড়ার আশঙ্কা থাকে।

১৩. কোলেস্টেরল

কোলেস্টেরল রক্তে পাওয়া একটি পদার্থ। এটি শরীরে সুস্থ কোষ তৈরি করতে সাহায্য করে, কিন্তু রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি হলে হৃদরোগ এবং স্ট্রোক হতে পারে। আলু কোলেস্টেরল মুক্ত, অর্থাৎ কোলেস্টেরল বাড়ানোর চিন্তা না করে এটি খাওয়া যেতে পারে।

আরও দেখুন>>>

১৪. ঘুমের
আলু খাওয়ার সুবিধার মধ্যে ঘুমের উন্নতিও অন্তর্ভুক্ত। যেমনটি আমরা উল্লেখ করেছি যে আলু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। ভিটামিন-সি নিউরোট্রান্সমিটার (মস্তিষ্কের রাসায়নিক) তৈরি করতে পারে। নিউরোট্রান্সমিটার মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করে মেজাজ এবং ঘুম নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করতে পারে। উপরন্তু, ভিটামিন-সি উদ্বেগ, চাপ, বিষণ্নতা এবং ক্লান্তি উপশম করতে কাজ করতে পারে, যা ঘুমকে উন্নীত করতে পারে।

একই সঙ্গে আরেকটি গবেষণা পত্রে প্রশান্তির ঘুম পেতে ঘুমানোর আগে দুধের সঙ্গে সিদ্ধ করে খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এটা বলা হয় যে আলুপেটে অ্যাসিডের ক্রিয়াকে বাধা দিতে পারে যা ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। এর ভিত্তিতে যদি দেখা যায়, রাতে ভালো ঘুমের জন্য আলুখাওয়া উপকারী বলে বিবেচিত হতে পারে।

১৫. মাসিক পূর্ব লক্ষণ
প্রি-মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম (PMS) হল লক্ষণগুলির একটি গ্রুপ যা একজন মহিলার মাসিক শুরু হওয়ার এক বা দুই সপ্তাহ আগে হতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে পেট ফোলা, মাথাব্যথা এবং মেজাজ পরিবর্তন। মাসিকের আগে দেখা এই লক্ষণগুলি থেকে মুক্তি পেতে আলু সহায়ক হতে পারে। এটি কার্বোহাইড্রেট এবং ফাইবার সমৃদ্ধ। একটি প্রতিবেদন অনুসারে, ফাইবার এবং কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ কিছু পরিমাণে প্রিমান্স্রুয়াল লক্ষণগুলির ঝুঁকি কমাতে পারে।

১৬. ত্বকের জন্য 

অভ্যন্তরীণ স্বাস্থ্যের পাশাপাশি আলুত্বকের জন্যও বেশ উপকারী হতে পারে। নিচে জেনে নিন ত্বকের জন্য আলুর সম্পর্কে।

> বলি জন্য
বয়স বাড়ার সাথে সাথে অনেক সমস্যা নিজেরাই দেখা দেয়, যার মধ্যে বলিরেখাও একটি। এগুলো দূর করতে আলু সহায়ক হতে পারে। আসলে, আলু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। এটি বলিরেখা দূর করে বার্ধক্যের প্রভাব কমাতে পারে। নিচে জেনে নিন কীভাবে আলু ব্যবহার করা যেতে পারে বলিরেখার জন্য:

কিভাবে ব্যবহার করে:
একটি আলু নিন এবং খোসা ছাড়ুন।
এবার মিক্সারের সাহায্যে পেস্ট তৈরি করুন।
এখন এই পেস্টটি আপনার মুখে ২০ মিনিটের জন্য লাগিয়ে রাখুন এবং তারপরে ঠান্ডা জল দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন।
এই প্রতিকার সপ্তাহে তিন থেকে চার বার করা যেতে পারে।

> গাঢ় দাগ
ত্বকের কালো দাগ দূর করতেও আলু ব্যবহার করা যেতে পারে। আসলে, আলু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। একই সময়ে, ভিটামিন-সি ত্বকের স্বর উন্নত করে কালো দাগ কমাতে সাহায্য করতে পারে। এটি নিম্নলিখিত উপায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে:

ব্যবহার :
একটি ব্লেন্ডারে খোসা ছাড়ানো আলু ব্লেন্ড করুন।
পেস্টটি আপনার মুখে লাগান এবং হালকা হাতে প্রায় 5 মিনিট ম্যাসাজ করুন।
তারপর পরিষ্কার এবং ঠান্ডা জল দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন।
ভালো ফলাফলের জন্য আপনি প্রতিদিন এটি ব্যবহার করতে পারেন।

> রোদে পোড়া
রোদে পোড়ার মতো অবস্থার জন্যও উপকারিতা দেখা যায়। যেমনটি আমরা উল্লেখ করেছি যে আলু ভিটামিন-সি  সমৃদ্ধ। একটি সমীক্ষা অনুসারে, ভিটামিন-সি সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি দ্বারা সৃষ্ট erythema (ত্বকের লাল হওয়া) এর মতো সমস্যা ৫২ শতাংশ কমাতে পারে। নিচে জেনে নিন কিভাবে রোদে পোড়া আলু ব্যবহার করবেন:

ব্যবহার :
আলু কিছুক্ষণ ফ্রিজে রেখে দিন।
ঠাণ্ডা হওয়ার পর, আলু কেটে একটি স্লাইস আক্রান্ত স্থানে ১৫-২০ মিনিটের জন্য লাগিয়ে রাখুন।
ঠাণ্ডা আলুর রস রোদে পোড়া ত্বকেও লাগাতে পারেন।

> ডার্ক সার্কেল এবং ফোলা চোখ

আলু চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে আলুভিটামিন-ই এবং সি  সমৃদ্ধ। এই দুটিই কার্যকর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মতো কাজ করে, যা ত্বকের কালো বৃত্ত থেকে মুক্তি পেতে কাজ করতে পারে। এছাড়াও, আলুপ্রদাহ-বিরোধী বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ, যা চোখের প্রদাহ কমাতে কাজ করতে পারে।

কিভাবে ব্যবহার করে:
একটি আলুর খোসা ছাড়িয়ে টুকরো করে কেটে নিন।
তারপর এই টুকরোগুলো চোখের নিচের ডার্ক সার্কেলের ওপর রাখুন।
এরপর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
ভালো ফলাফলের জন্য আপনি প্রতিদিন এই প্রতিকারটি করতে পারেন।

> শুষ্ক ত্বক
শুষ্ক ত্বককে কোমল করতে ব্যবহার উপকারী হতে পারে। আসলে, আলু ভিটামিন-ই সমৃদ্ধ। একই সময়ে, একটি গবেষণা পত্র অনুসারে, ভিটামিন-ই ত্বককে হাইড্রেট করতে কাজ করতে পারে। নিচে জেনে নিন শুষ্ক ত্বকে আলু কীভাবে ব্যবহার করবেন-

কিভাবে ব্যবহার করে:

অর্ধেকটি আলুথেঁতো করে তাতে চার চামচ দই মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন।
এখন পেস্টটি প্রায় 20 মিনিটের জন্য মুখে লাগিয়ে রাখুন এবং তারপরে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

> উজ্জ্বল ত্বকের জন্য
ত্বক উজ্জ্বল করতে উপকারিতা দেখা যায়। প্রকৃতপক্ষে, আলু একটি প্রাকৃতিক ত্বক আলোক এজেন্ট হিসাবে পরিচিত। এছাড়াও, আলুতে ভিটামিন-সি-এর মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়। এটি ত্বক উজ্জ্বল করতে কাজ করতে পারে। নিচে জেনে নিন উজ্জ্বল ত্বকের জন্য আলু কীভাবে ব্যবহার করবেন-

কিভাবে ব্যবহার করে:
একটি কাঁচা আলু থেঁতো করে মুখে মাস্ক হিসেবে লাগান।
প্রায় ৩০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
সেরা ফলাফলের জন্য আপনি সপ্তাহে চার থেকে পাঁচ বার এই প্রতিকারটি করতে পারেন।

> exfoliate
ত্বক থেকে মৃত কোষ দূর করতেও সাহায্য করতে পারে আলু। বলা হয় যে কাঁচা আলুতে উপস্থিত কিছু এনজাইম, ভিটামিন সি এবং স্টার্চ ত্বকের টিস্যুকে পুষ্ট করতে কাজ করতে পারে। এছাড়া আলুর রসে উপস্থিত ক্ষারীয় প্রভাব ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে। এছাড়াও এর অম্লীয় প্রকৃতি পুরানো ত্বক অপসারণ করতে সাহায্য করতে পারে।

কিভাবে ব্যবহার করে:
একটি আলু পিষে মুখে লাগান।
প্রায় ২০ মিনিট পর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
নিয়মিত করা এই প্রতিকার ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে কাজ করবে।

> কোলাজেন
কোলাজেন ত্বকের স্বাস্থ্যের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রোটিন, যা আলু মাধ্যমে পূরণ করা যায়। আলু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। যেখানে এবং ভিটামিন সি কোলাজেন বৃদ্ধিতে সহায়ক হতে পারে।

১৭. চুলের জন্য

অভ্যন্তরীণ স্বাস্থ্য এবং ত্বকের পাশাপাশি আলুচুলের জন্যও উপকারী বলে বিবেচিত হতে পারে। একটি গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে যে আলুপ্রাকৃতিকভাবে চুল সুস্থ রাখতে সহায়ক হতে পারে। এটি চুলের বৃদ্ধিতেও কার্যকরী। এমন পরিস্থিতিতে বলা যায় আলু ব্যবহার চুলের জন্য উপকারী হতে পারে। নিচে জেনে নিন চুলের জন্য আলুকীভাবে ব্যবহার করবেন।

কিভাবে ব্যবহার করে:
আলুর খোসা ছাড়িয়ে এর রস বের করুন।
তারপর ২ টেবিল চামচ আলুর রসের সাথে ২ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা এবং ২ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নিন।
এই মিশ্রণটি চুলের গোড়ায় লাগিয়ে হালকা হাতে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন।
তারপর শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে চুল ঢেকে কয়েক ঘণ্টা রেখে দিন।
এবার সবশেষে শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

 

ড্রাগন ফলের ১৭ টি স্বাস্থ্য উপকারিতা

ডায়াবেটিস এর লক্ষণ, কারণ ও ঘরোয়া প্রতিকার