in

ডায়াবেটিস এর লক্ষণ, কারণ ও ঘরোয়া প্রতিকার

আপনি কি ডায়াবেটিস সংক্রান্ত এই বিষয়গুলো জানেন?
সারা বিশ্বে কোটি কোটি মানুষ ডায়াবেটিস নামক এই রোগে আক্রান্তডায়াবেটিস বা ডায়াবেটিসকে স্থানীয় ভাষায় বলা হয় ‘সুগার‘। এটি একটি দুরারোগ্য ব্যাধি যা মূল থেকে শেষ হয় না। এটি নিয়ন্ত্রণ করা যায়, অর্থাৎ এটি কেবল নিয়ন্ত্রণ করা যায়। যে কেউ এই রোগে আক্রান্ত হলে তার চিকিৎসা বন্ধ করা উচিত নয়। শরীরের রক্তে শর্করা বা গ্লুকোজ খুব বেশি হয়ে গেলে ডায়াবেটিস হয়। রক্তের গ্লুকোজ আমাদের শক্তির প্রধান উৎস।

আমরা যে খাবার  খাই তা থেকে আমাদের শরীর রক্তে শর্করা পায়। আমরা যদি চিকিৎসার মাধ্যমে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে না পারি, তাহলে এর প্রভাব আমাদের শরীরের অন্যান্য অংশ যেমন কিডনি, চোখ, ফুসফুস, হার্ট এবং রক্তচাপের ওপর পড়ে।

আমাদের শরীরের হরমোন ইনসুলিন (বিটা কোষের অভ্যন্তরে অগ্ন্যাশয় থেকে নিঃসৃত হরমোন) আমাদের শরীরের সাথে সঠিকভাবে না মিললে এই রোগ হয়। ডায়াবেটিসকে ডায়াবেটিস মেলিটাসও বলা হয়। এটি একটি খারাপ জীবনধারার কারণ।

আজকের প্রবন্ধে আমরা ডায়াবেটিস সম্পর্কে কিছু কথা শেয়ার করব। এটা আপনার জন্য দরকারী আশা করি…..

ডায়াবেটিসের প্রকারভেদ

এটা দুই প্রকার-
1.) টাইপ ১ ডায়াবেটিস
2.) টাইপ ২ ডায়াবেটিস

গর্ভাবস্থায়ও ডায়াবেটিস হয়, যা সীমিত সময়ের জন্য এবং সময়ের সাথে সাথে নিরাময় হয়।

1.) টাইপ ১ ডায়াবেটিস
এই ডায়াবেটিস শিশুদের মধ্যে পাওয়া যায় যা সাধারণত 20 বছরের কম বয়সী শিশুদের মধ্যে দেখা যায়। এতে ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা নষ্ট হয়ে যায়। এর ফলে শরীরের মেটাবলিক সিস্টেম নষ্ট হয়ে যায়, তারপর শর্করার মাত্রা বাড়তে থাকে। শিশুদের মধ্যে যখন বিটা কোষ তৈরি হয় না বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

আরও দেখুন>>>

2.) টাইপ ২ ডায়াবেটিস
বেশিরভাগ মানুষ টাইপ ২ ডায়াবেটিসে ভুগছেন। এতে ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা এবং ইনসুলিনের কার্যক্ষমতা কমে যায়। আমাদের শরীরের প্রয়োজনীয় পরিমাণ ইনসুলিন আমাদের শরীর পায় না। এই ডায়াবেটিস ২০ বছরের বেশি বয়সী মানুষের মধ্যে দেখা দেয়।

ডায়াবেটিসের লক্ষণ

যখন আমরা আমাদের শরীরে নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি দেখতে শুরু করি, তখন আমাদের অবশ্যই ডাক্তারের কাছে যেতে হবে-

১.) ঘন ঘন তৃষ্ণা।
২.) ক্ষুধা বৃদ্ধি।
৩.) হঠাৎ ওজন বৃদ্ধি বা হ্রাস।
৪.) ক্লান্ত এবং দুর্বল বোধ।
৫.) ক্ষত নিরাময় না হওয়া।
৬.) ফোঁড়া ফেটে যাওয়া।
৭.) ঝাপসা দৃষ্টি।
৮.) দাঁতের রোগ।
৯.) হাত ও পায়ে শিহরণ বা অসাড়তা।
১০.) পায়ে এবং হাঁটুতে ব্যথা।

ডায়াবেটিস টেস্টিং

ডায়াবেটিস স্ক্রীনিং দুই ভাগে বিভক্ত-

ডায়াবেটিসের একটি পরীক্ষা খালি পেটে করা হয়, একে রোজা বলে। খালি পেটে, রক্তে চিনির পরিমাণ 125 mg/dl-এর বেশি হলে তা ডায়াবেটিস নির্দেশ করে।

দ্বিতীয় পরীক্ষা যা খাওয়ার ২ ঘন্টা পরে করা হয় তাকে পোস্ট পেন্ডিয়াল বলে।

এতে যদি শরীরে চিনির পরিমাণ 147 mg/dl-এর বেশি পাওয়া যায়, তাহলে তা ডায়াবেটিস নির্দেশ করে।

এই মানদণ্ডগুলি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দ্বারা নির্ধারিত হয়েছে, যেখানে কোনও ডাক্তার বা সাধারণ মানুষ পরিবর্তন করতে পারে না। এখন এই পরীক্ষা আরও সহজ হয়েছে। এখন আর বারবার ডাক্তারের কাছে যেতে হবে না এবং দীর্ঘ লাইনে দাঁড়াতে হবে না কারণ বাজারে সুলভ মূল্যে ব্লাড সুগার টেস্টিং মেশিন পাওয়া যাচ্ছে।

যেটি যে কোন ব্যক্তি কিনতে পারে এবং এই মেশিনটি সঠিক মান দেয়, তাই আপনারা সবাই চিন্তা করবেন না যে মেশিনটি ভুল মান বলবে। গ্লাইকোসিলেটেড হিমোগ্লোবিনের মাত্রা 7 শতাংশের বেশি হওয়া উচিত নয়। এমনটা হলে এমন ব্যক্তিও ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। আমাদেরও উচিত সঠিকভাবে চিকিৎসা করা।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে হলে আমাদের খাওয়ার ধরন পরিবর্তন করতে হবে।

সবুজ চা, করলা, জাম, তুলসী, ডুমুর পাতা, মেথি, দারুচিনি গুঁড়া ইত্যাদি খাবারে আমাদের অনেক ধরনের জিনিস অন্তর্ভুক্ত করা উচিত। চিনি পরিহার করার জন্য ব্যায়ামও প্রয়োজন।

এখানে আমরা কিছু উপকারী খাবার সম্পর্কে বলতে যাচ্ছি যা সুগার রোগীদের জন্য কার্যকরী প্রমাণিত হবে। তো চলুন দেখি এগুলো কি!

1.) নিম
নিম খুবই কার্যকরী একটি ওষুধ। এর পাতা ও বাকল দুটোই ঔষধি গুণে পরিপূর্ণ। নিম পাতা পিষে তার রস তৈরি করে পান করুন অথবা সকাল-সন্ধ্যা দু-তিনটি পাতা খান।

2.) সবুজ চা
ডায়াবেটিস রোগীদের জন্যও গ্রিন টি উপকারী প্রমাণিত হয়। যাদের চা খাওয়ার অভ্যাস আছে তাদের গ্রিন টি পান করা শুরু করা উচিত। এটি কোলেস্টেরলও কমায়। সবুজ চায়ে চিনি বা মধু ব্যবহার করা উচিত নয়।

3.) করলা
করলা খেতে তেতো হলেও এর উপকারিতা অমূল্য। বেশিরভাগ মানুষ এটি খেতে একেবারেই পছন্দ করেন না তবে এটি উপকারী। করলা আমাদের শরীরে উৎপন্ন অতিরিক্ত গ্লুকোজ কমাতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সকালে খালি পেটে করলার রস খাওয়া খুবই উপকারী।

4.) জামুন
জামুনের বীজ শুকিয়ে পাউডার বানিয়ে খেলেও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। এর পাশাপাশি জামুনের রস খেলে ডায়াবেটিসও নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

5.) তুলসী
তুলসি গাছের পাতা ওষুধও ব্যবহৃত হয়। চায়ে তুলসী পাতা খেলে কাশিতে উপশম হয়। সকালে তুলসী পাতা খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

6.) মেথি
রান্নায় শুকনো মশলা হিসেবে মেথি ব্যবহার করা হলেও ডায়াবেটিসের চিকিৎসায়ও মেথি খুবই উপকারী। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে মেথিকে রাতে পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে ছেঁকে এর পানি পান করতে হবে।

ডায়াবেটিসে কি খাবেন না – What not to eat in Diabetes?

1.) সাদা রুটি
হোয়াইট ব্রেড বা সাদা পাস্তায় উচ্চ পরিমাণে পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেট থাকে, যা আমাদের রক্তে পৌঁছে সুগার বা চিনির মাত্রা বাড়ায়।

2.) সাদা চাল বা ভাত
চালে আঁশের পরিমাণ কম থাকে। এর পাশাপাশি এতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট, যার কারণে এটি সহজে হজম হয় এবং পরিমাণে গ্লুকোজ তৈরি করে। এটি রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে।

আরও দেখুন>>>

3.) আলু
আলু থেকে তৈরি খাবারে উচ্চ পরিমাণে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকে যা চিনির মাত্রা বাড়ায়।

4.) ফলের রস
ফলের রসে মিস্টি থাকে যা রক্তে শর্করা বাড়ায়। এটি শুধুমাত্র লো ব্লাড সুগারে উপকারী।

5.) রেডমিট
লাল মাংসে অস্বাস্থ্যকর স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

6.) দুধ
ডায়াবেটিস রোগীরও দুধ পান করা উচিত নয়

7.) কোমল পানীয়
কোমল পানীয় গ্রহণ করা খুব বিপজ্জনক হতে পারে। ডায়াবেটিস রোগীদের কখনই এটি খাওয়া উচিত নয়।

8.) সুগার ফ্রি কিউব
মানুষ বিশ্বাস করে যে কৃত্রিম সুইটনার সুগার রোগীর জন্য ভালো কিন্তু তা ঠিক নয়। এই পরিহার করা উচিত।

9.) জাঙ্ক ফুড
ফাস্ট ফুড বা জাঙ্ক ফুড একেবারেই খাওয়া উচিত নয়।

উপসংহার
আজকাল আমরা সাধারণত ডায়াবেটিস বা ডায়াবেটিস রোগ দেখতে পাই। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের তাদের স্বাস্থ্যের বিশেষ যত্ন নেওয়া উচিত।  একজন ডায়াবেটিস রোগীকে তার খাবারের প্রতি খেয়াল রাখতে হবে। এর পাশাপাশি শরীরকে ফিট রাখাও জরুরি। এ জন্য ব্যায়াম করা যেতে পারে।

কোনো সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ প্রয়োজন। এই নিবন্ধে, আমরা ডায়াবেটিস সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা আশা করি আপনি এই নিবন্ধটি পছন্দ করেছেন। আপনি কমেন্ট বক্সে লিখে আমাদের সাথে নিবন্ধ সম্পর্কিত প্রশ্ন এবং পরামর্শ শেয়ার করতে পারেন।

বিশেষ- এই নিবন্ধে আমরা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কিছু বিশেষ খাবার খাওয়া এবং না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি। এর সাথে আমরা পরামর্শ দিই যে ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে কোনও প্রতিকার গ্রহণ করার আগে ডাক্তারের পরামর্শ প্রয়োজন।

আলু’র ১৭ টি সুবিধা, ব্যবহার এবং অসুবিধা

এলাচ খেলে কি কি উপকার পাওয়া যায়? গুণাগুণ ও ক্ষতি বিস্তারিত দেখুন