in

ঘরে বসে সাদা চুল কালো করার উপায়

সাদা চুলের সমস্যা শুধু বৃদ্ধদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, আজকাল শিশুদের মধ্যেও এটি হতে শুরু করেছে। তবে সময়মতো চুলের প্রতি একটু মনোযোগ দিলে এই সমস্যা হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায় এবং চুলকেও মজবুত ও ঘন রাখা যায়

সাদা চুলের কারণ(Reason of white Hair)

  • চিন্তা
  • সঠিক খাদ্যের অভাব
  • অত্যধিক চুল পণ্য ব্যবহার
  • নিম্নমানের পণ্য ব্যবহার করুন
  • দূষণ
  • অনেক সময় এই সমস্যা জেনেটিকও হয়ে থাকে।
  • হরমোন

সাদা চুল কালো করার ঘরোয়া উপায়
শুধু কেমিক্যাল সমৃদ্ধ জিনিসের সাহায্যেই চুল কালো করা যায় এমন নয়। আপনি চাইলে নিচে উল্লিখিত প্রাকৃতিক প্রতিকারের সাহায্যেও সেগুলোকে কালো করতে পারেন।

কাঁচা পেঁপে-
কাঁচা পেঁপে ব্যবহার করে, আপনি কয়েক মাসের মধ্যে আপনার এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন এবং এটি করার জন্য আপনাকে কেবল কাঁচা পেঁপে পিষে এর পেস্ট তৈরি করতে হবে। এই পেস্টটি চুলে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট।

পেঁয়াজ –
পেঁয়াজের রস ব্যবহার করে আপনি আপনার চুল আবার কালো করতে পারেন, আপনাকে শুধু একটি পেঁয়াজ কুঁচি করে চুলে লাগাতে হবে।

আমলা পেস্ট-

সাদা চুল

আমলা পেস্ট চুল লম্বা করতে এবং সাদা চুল কালো করতে সহায়ক এবং এর পেস্ট লাগালে চুলের আরও অনেক উপকার পাওয়া যায়। এর পেস্ট প্রস্তুত করতে আপনার ৪ থেকে ৬ টি গুজবেরি লাগবে। আপনি তাদের পিষে একটি পেস্ট প্রস্তুত করতে হবে। এরপর এই পেস্টটি কিছুক্ষণ চুলে লাগিয়ে রাখতে হবে এবং শুকিয়ে গেলেই চুল ধুয়ে ফেলুন।

নারকেল তেল এবং কারি পাতা
নারকেল তেল এবং কারি পাতা চুলের জন্যও উপকারী এবং এই দুটি চুলে মিশিয়ে ব্যবহার করলে সাদা চুলের সমস্যা দূর হয়। এই দুটি জিনিসের একটি পেস্ট তৈরি করতে, আপনাকে ১/৮ কাপ নারকেল তেল এবং ১/৪ কাপ কারি পাতা একসাথে গরম করতে হবে। পর্যাপ্ত গরম হয়ে এলে গ্যাস বন্ধ করে ঠান্ডা করে নিন।

তেল ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার পর, আপনি এটি চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগান, প্রতিবার চুল ধোয়ার আগে এই প্রক্রিয়াটি অনুসরণ করুন, আপনি অবশ্যই উপকার পাবেন।

আরও দেখুন>>>

বাদাম তেল, লেবুর রস এবং আমলার রস-
একটি পাত্রে চার চামচ বাদাম তেল এবং এক চামচ লেবুর রস এবং আমলার রস ভালো করে মিশিয়ে নিন, আপনি অবশ্যই এর ব্যবহারে উপকৃত হবেন।

তিলের তেল এবং গাজরের তেল-
৪ টেবিল চামচ তিলের তেল এবং আধা চা চামচ গাজরের বীজের তেল নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন এবং যখন এই দুই ধরনের তেল ভালোভাবে মিশে যাবে, তখন আপনি এটি ব্যবহার করবেন, অবশ্যই উপকার পাবেন।

মেহেদি ও মেথি গুঁড়া-

মেহেদি গুঁড়া ও মেথির গুঁড়া মিশিয়ে চুলে লাগালে সাদা চুল কালো হয়ে যায়। যাইহোক, তাদের পেস্ট তৈরি করতে, আপনাকে এই দুটি জিনিসের পাউডারে দই এবং কফি পাউডার যোগ করতে হবে এবং তারপরে একটি পাতলা পেস্ট তৈরি করতে কিছু জল যোগ করতে হবে, তবেই আপনি এটি ব্যবহার করতে সক্ষম হবেন।

বাদাম তেল এবং তিলের তেল-
বাদামের তেল চুলে অনেক ধরনের পুষ্টি জোগায়, তাই নিয়মিত এর তেল লাগাতে হবে। অন্যদিকে, আপনি চাইলে এই তেলে তিলের তেল মিশিয়েও লাগাতে পারেন। এই দুটি জিনিসের তেল লাগালে আপনার সাদা চুল কালো হয়ে যাবে।

গরুর দুধের মাখন-
আয়ুর্বেদ অনুযায়ী গরুর দুধ থেকে তৈরি মাখন চুলে লাগালে চুল সাদা হওয়ার সমস্যা দূর হয়। তাই গরুর দুধ কিনে বাড়িতেই এর মাখন তৈরি করুন এবং নিয়মিত চুলে লাগাতে থাকুন।

যোগব্যায়াম –
এছাড়াও যোগব্যায়ামের সাহায্যে বয়সের আগে চুল পাকা হওয়ার সমস্যা রোধ করা যায় এবং সাদা চুল কালো করা যায়। আপনি শুধু নিয়মিত উভয় হাতের নখ ঘষুন বা যোগাসন যেমন ভ্রমরী প্রাণায়াম, কপালভাতি এবং ভুজঙ্গাসন করতে থাকুন।

বায়োটিনযুক্ত পণ্য ব্যবহার করুন-
বায়োটিন চুল কালো রাখে এবং সাদা চুল কালো করতে সহায়ক, তাই আপনার শুধুমাত্র সেই চুলের পণ্যগুলি ব্যবহার করা উচিত, যা বায়োটিন তৈরিতে ব্যবহৃত হয়েছে। এ ছাড়া ডিমের মতো জিনিসও খেতে হবে।

ভিটামিন বি 12 যুক্ত খাবার খান-

ভিটামিন B12 যুক্ত জিনিস খাওয়া চুলের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। পনির, অ্যাভোকাডো, কমলালেবু, বরই এবং ক্র্যানবেরির মতো জিনিসগুলিতে ভিটামিন বি 12 পাওয়া যায় এবং এই সমস্ত জিনিসগুলি চুলের বৃদ্ধিতে সহায়ক, চুল কালো রাখতে, তাই আপনার এই জিনিসগুলি আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

ত্রিফলা ও ভৃঙ্গরাজ-
ত্রিফলা ও ভৃঙ্গরাজ চুলের জন্য খুবই ভালো এবং এগুলো ব্যবহার করলে চুল ঝলমলে ও কালো হয়ে সুন্দর হয়। আপনি রাতে একটি প্যানে পানিতে এই দুটি জিনিস মিশিয়ে নিন এবং সকালে চুল ধোয়ার এক ঘণ্টা আগে এই পানি চুলে লাগান এবং শুকিয়ে গেলে চুল ধুয়ে ফেলুন।

গাজরের রস-
আপনাকে অবশ্যই আপনার ডায়েটে গাজরের রস অন্তর্ভুক্ত করতে হবে, কারণ এই রস অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সরবরাহ করে যা বিষাক্ত পদার্থগুলিকে দূর করে যা ধূসর চুলের বৃদ্ধি ঘটায়।

আদা –
আদার মধ্যে এমন অনেক উপাদান পাওয়া যায় যা সাদা চুল কালো করতে খুবই কার্যকরী। তাই আদা পিষে মধুর সঙ্গে মিশিয়ে চুলে লাগালে সাদা চুলের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

চা পাতা-
এটি একটি প্রাকৃতিক রঞ্জক, যার কারণে চুল কালো হয়ে যায়। ব্ল্যাক টি চুলের অকালে পাকা হয়ে যাওয়াকে কালো করে। এটি ব্যবহার করাও খুব সহজ। ২ চামচ চা পাতা পানিতে ফুটিয়ে নিন। এবার নামিয়ে ২ ঘণ্টা ঠান্ডা হতে দিন। পানি ফিল্টার করে একটি স্প্রে বোতলে ভরে নিন। এবার এই স্প্রে বোতল দিয়ে চুলে স্প্রে করুন। এটি কমপক্ষে ১ ঘন্টা রেখে দিন তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এর পর শ্যাম্পু করবেন না।

নারকেল তেল-

সাদা চুল

নারকেল তেলের সাথে লেবুর রস লাগালে চুল চকচকে ও কালো হয়। আপনার চুল অনুযায়ী নারকেল তেল নিন, এতে ৩ টেবিল চামচ লেবুর রস মেশান। এবার এটি দিয়ে চুলের গোড়ায় ম্যাসাজ করুন। এর পর চিরুনি দিন। এভাবে ১ ঘণ্টা রেখে তারপর মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার এটি লাগান, এতে আপনার কালো চকচকে নরম চুল আসবে।

নিম পাতা –
নিম পাতার সঙ্গে নারকেল তেল মিশিয়ে লাগালে চুলে পুষ্টি যোগায়। চুল গজায় এবং ধূসর হওয়ার ক্ষমতা হ্রাস পায়। কিছু নিম পাতা নারকেল তেলে ফুটিয়ে নিন। এবার পাতা আলাদা করে তেল ঠাণ্ডা হতে দিন। এবার এই তেল দিয়ে আপনার মাথার শিকড়ে ম্যাসাজ করুন। এবং ১ ঘন্টা পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এক মাসের জন্য সপ্তাহে দুবার এটি করুন।

মেহেন্দি (হেনা)-

এটি একটি প্রাকৃতিক রঞ্জক, যা প্রাচীনতম কার্যকর প্রতিকার। মেহেদি লাগালে চুল কালো ও নরম হয়। এটি একটি খুব ভালো কন্ডিশনারও বটে। মেহেন্দি লাগানোর রীতি বহু শতাব্দী ধরে চলে আসছে। আমাদের দাদি/ নানি রেসিপি এখনও আমাদের মেহেন্দি লাগানোর পরামর্শ দেয়। আগে মানুষ বাড়িতে মেহেদি পিষে চুলে লাগাতেন। এখন আমরা বাজারে সহজেই মেহেন্দি পাউডার পেয়ে থাকি। মেহেদি লাগাতে সময় লাগে কিন্তু এটি খুবই কার্যকরী। আর সেই সঙ্গে আমাদের চুল ও ত্বকের কোনো ক্ষতি হয় না।

একটি লোহা বা স্টিলের পাত্র নিন, এবার ১ কাপ মেহেদি, ২ টেবিল চামচ কফি পাউডার, ১ টেবিল চামচ দই, ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১ টেবিল চামচ আমলা গুঁড়া, ১ টেবিল চামচ শিকাকাই পাউডার, ২-৩ চামচ ভিনেগার যোগ করুন। সামান্য পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এবার এই মিশ্রণটি সারারাত না ঢেকে অন্তত ২ ঘণ্টা রাখুন। এবার চুলে ভালো করে লাগিয়ে শুকাতে দিন। এবার পানি দিয়ে ধুয়ে পরের দিন শ্যাম্পু করে ফেলুন। সপ্তাহে একবার এটি প্রয়োগ করতে ভুলবেন না।

আরও দেখুন>>>

কালো মাটি-
আমাদের দেশের মাটি খুবই ভালো ও উর্বর। এই মাটি আমাদের চুলের জন্যও খুব ভালো, যার কারণে চুল হয়ে ওঠে কালো, নরম ও ঝলমলে। পুকুর বা নদীর ধারে কালো মাটি পাবেন। এই মাটি খুব মসৃণ, এতে নুড়ি নেই। মাটি শুকিয়ে গেলে তাতে কিছু জল যোগ করুন। এবার এই কাদামাটি চুলে এবং গোড়ায় লাগান। ১০-১৫ মিনিট পরে পানি  এবং শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে এটি প্রয়োগ করুন। এতে চুল কালো, ঘন ও মজবুত হবে।

কালো তিল-

তিলের বীজে অনেক খনিজ ও ভিটামিন থাকে। এটি চুল পড়া কমিয়ে কালো করে। (কালো তিল না থাকলে সাদা তিলও ব্যবহার করতে পারেন।) তিল কিছুক্ষণ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এবার একটি মিক্সারে পিষে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট চুলে লাগিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। ঘণ্টা পর পানি দিয়ে ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে ১ বার ব্যবহার করুন। আপনি অবশ্যই এটি থেকে ফলাফল পাবেন।

আমের পাতা-
আমের পাতা পিষে পেস্ট তৈরি করুন। এটি আপনার চুলে লাগান এবং ১৫-২০ মিনিট পরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে চুল গজাবে এবং কালোও হবে। এছাড়া কিছু আমের পাতা ও আমের খোসা পিষে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্টটি নারকেল তেলে মিশিয়ে বাক্সে ভরে দিন। এই বাক্সটি কয়েক দিন রোদে রাখুন। এবার চুলে সবসময় এই তেল ব্যবহার করুন। এটি চুল পড়া কমায় এবং চুল কালো করে। আমের এই দুটি প্রতিকারই অত্যন্ত উপকারী বলে প্রমাণিত হয়েছে।

সাদা চুলের ঘাটতি কী?
অল্প বয়সেই পাকা চুলের সমস্যা হয়ে উঠছে। এগুলি প্রধানত পুষ্টির অভাবের কারণে ঘটে। কখনও কখনও কিছু লোকের জেনেটিক সমস্যার কারণেও এটি হয়ে থাকে। এগুলি প্রধানত প্রোটিন, হিমোগ্লোবিনের ঘাটতির কারণে ঘটে। যাদের রক্তস্বল্পতা, থাইরয়েড আছে, তাদের মধ্যে এই সমস্যা বেশি দেখা যায়।

কোন ভিটামিনের অভাবে চুল পাকা হয়ে যায়?
শরীরে ভিটামিন B১২, ভিটামিন B এর অভাবের কারণে অল্প বয়সেই চুল পাকা হয়ে যায়। আপনার খাদ্যতালিকায় ভিটামিন বি সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খান, এতে এই সমস্যা অনেকাংশে কমে যাবে।

ভিটামিন বি কিসে পাওয়া যায়?

মুরগি, মাছ, সবুজ তাজা মটর, বাদাম, ব্রকলি ইত্যাদি।

কোন ভিটামিনের অভাবে চুল পড়ে?
আপনার যদি প্রচুর চুল পড়ে, তার মানে আপনার শরীরে ভিটামিন সি-এর অভাব রয়েছে। এতে চুলের শুষ্কতা বাড়ে, আবার ভেঙে যেতে থাকে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান।

ধূসর চুল কালো করার ওষুধ কি?
প্রাকৃতিকভাবে চুল কালো করার প্রতিকার দেখুন, রাসায়নিক সমৃদ্ধ পদার্থ আপনার চুলে অন্যান্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। চুল কালো করতে ভৃঙ্গরাজ তেল দিয়ে ম্যাসাজ করতে হবে, খুব ভালো।

আমাদের আজকের পোস্টটি আপনাদের কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। যদি আমাদেই এই পস্টটি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। পরবর্তী তে কোন বিষয়ে পোস্ট দেখতে চান কমেন্ট করবেন। আপনাদের কমেন্ট আমাদের কে পোস্ট লিখতে উৎসাহিত করে।

মাথা ব্যথার কারণ এবং তার ১২ টি প্রতিকার জানুন

জিম ছাড়া মাত্র ১৫ দিনে কিভাবে শরীর বাড়ানো যায় দেখে নিন